Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সাধারণ তথ্য

(ক) প্রশাসনিক ও প্রশিক্ষণ ভবনঃ- ২০০০ সালের ১লা জানুয়ারী থেকে এই ভবনটিতে দাপ্তরিকসহ অন্যান্য কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। ভবনের নীচতলায় দাপ্তরিক কার্যক্রম এবং নীচতলার দু’টি কক্ষসহ  দোতলা ও তৃতীয় তলায় চলে প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের কার্যক্রম।

 

(খ) মিলনায়তনঃ- একাডেমীতে ৩০০ আসন বিশিষ্ট লাইট ও সাউন্ড সিস্টেম সুবিধাদিসহ একটি মিলনায়তন আছে। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, নাটক, আবৃত্তি, নৃত্যানুষ্ঠান, সেমিনার, সিম্পোজিয়াম ইত্যাদি আয়োজনের জন্য নীতিমালা অনুযায়ী বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান সমূহকে ব্যবহার এর জন্য ভাড়া দেয়া হয়।

 

(গ) আর্টগ্যালারী ভবনঃ- তিনতলা বিশিষ্ট একটি আর্টগ্যালারী ভবন রয়েছে। ভবনের ২য় ও ৩য় তলায় চিত্র প্রদর্শনী, আলোকচিত্র ইত্যাদির জন্য ভাড়া দেয়া হয়। নীচতলায় প্রদর্শনী উদ্বোধন, সেমিনার, কর্মশালা ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড ইত্যাদির জন্য নীতিমালা অনুযায়ী ভাড়া দেয়া হয়।

 

(ঘ) মহড়া ভবনঃ-দুইতলা বিশিষ্ট (চারটি কক্ষ) একটি মহড়া ভবন রয়েছে। বিভিন্ন নাট্যদল, আবৃত্তি, নৃত্য, সংগীত সংগঠন সমূহ সুন্দরভাবে অনুষ্ঠান আয়োজন করার লক্ষ্যে উক্ত কক্ষগুলোতে মহড়া করার জন্য নীতিমালা অনুযায়ী ভাড়া দেয়া হয়।

 

(ঙ) মুক্তমঞ্চঃ-শিল্পকলা প্রাঙ্গনে অনিররুদ্ধ বড়ুয়া (অনি) নামে একটি মুক্ত মঞ্চ রয়েছে। যেখানে বিভিন্ন নাটদল, আবৃত্তিদল, সংগীত, নৃত্য ইত্যাদি সংগঠন / প্রতিষ্ঠান অনুষ্ঠান আয়োজন করে থাকে।

 

সাংস্কৃতিক প্রশিক্ষণ             :  দেশের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে আরো গণমুখী ও গতিময়করার লক্ষ্যে শিল্পকলা একাডেমীতে একটি প্রশিক্ষণকেন্দ্র রয়েছে। যেখানে নিয়মিত ও পদ্ধতিগত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সৃজনশীল সংস্কৃতি চর্চার প্রতি দেশের সুধি মহলের অধিকতর আগ্রহ সৃষ্টি করা হয়। সঙ্গীত, নৃত্য, নাটক, আবৃত্তি, তালযন্ত্র, চিত্রকলা সংস্কৃতির এসব বিষয়কে নিছক আনন্দদানের উপকরণের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে শিল্প ও সমাজ জীবনের মান উন্নয়নের ক্ষেত্রে একটি বলিষ্ঠ মাধ্যম হিসাবে গ্রহণ করা। এরই লক্ষে নিম্মে উলেস্নখিত বিষয়ে শিল্পকলা একাডেমীতে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

 

# শিশুদের জন্য ২বছর মেয়াদী ফাউন্ডেশন কোর্স সমূহ :

 

ক) চারুকলা      খ) সঙ্গীত        গ) নৃত্য           ঘ) আবৃত্তি                  ঙ) নাটক                   চ) তবলা

 

# বিভিন্ন মেয়াদী পূর্ণাঙ্গ কোর্স সমূহ :

 

*        সংগীত, নৃত্য, তবলা       -- ৪ বৎসর মেয়াদী

 

*        চারুকলা                    --  ৩ বৎসর মেয়াদী

 

*        আবৃত্তি, নাটক              -- ২ বৎসর মেয়াদী

 

·                   ফাউন্ডেশন কোর্সের ক্লাস সমূহ শুরু হয় শুক্রবার সকাল ১০টায়।

·                   পূর্ণাঙ্গ কোর্সের ক্লাস সমূহ বিকাল ৪.৩০ মিনিটের পর থেকে রুটিন অনুযায়ী শুরু হয়।

 

·                   প্রতিবছর ডিসেম্বর মাসের ২০ তারিখ থেকে আবেদন ফরম বিতরণ করা হয়। জানুয়ারী ১ম সপ্তাহে সাক্ষাৎকার গ্রহণের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ভর্তি করা হয়।

 

খ) প্রশিক্ষণ এর সেশন ঃ- জানুয়ারী  থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত।

 

গ)  ভর্তির কার্যক্রমঃ- জানুয়ারী  থেকে মার্চ এর মধ্যে যাবতীয় ভর্তির কার্যক্রম শেষ করা হয়।         

ঘ) প্রশিক্ষক সংখ্যাঃ- সর্বমোট ১৬ (ষোল) জন। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী কর্তৃক নিয়োগপ্রাপ্ত ১০জন এবং স্থানীয়ভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত ০৬(ছয়) জন। কণ্ঠসংগীতে- ৪জন, নৃত্যে- ৩জন, তবলা- ১জন, আবৃত্তি- ১জন, নাটকে- ১জন, চারুকলা- ৩জন, তালবাদ্যযন্ত্র সহকারী- ৩ জন

 

ঙ) পরীক্ষা সংক্রামত্ম তথ্যঃ- শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বছরে দু’বার পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়। প্রথম সাময়িক ও বার্ষিক পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়।

 

চ) এছাড়াও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী ও জেলা শিল্পকলা একাডেমী বিশিষ্ট প্রশিক্ষক দ্বারা বিভিন্ন সময়ে সংগীত, নৃত্য, নাটক, আবৃত্তি, চারুকলা ও তবলা বিষয়ে উচ্চতর কর্মশালা আয়োজন করে থাকে।

 

ছ) একাডেমী কর্তৃক আয়োজিত নিয়মিত অনুষ্ঠানসমূহঃ

শহীদ দিবস ও আমত্মর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, মহান স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস,  বাংলা বর্ষ বিদায় ও বরণ অনুষ্ঠান, জাতীয় শিশু দিবস, জাতীয় শোক দিবস, রবীন্দ্র জয়ন্তি অনুষ্ঠান, নজরম্নল জয়ন্তি অনুষ্ঠান, বিশ্ব সংগীত দিবস, বিশ্ব নাট্য দিবস, বিশ্ব নৃত্য দিবস, ঋতু ভিত্তিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বাৎসরিক চারুকলা প্রদর্শনী, আবৃত্তি উৎসব, নাট্য উৎসব, লোকজ সাংস্কৃতিক মেলা, একাডেমীর সম্মামনা প্রদান, মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, ত্রৈমাসিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ইত্যাদি।  এছাড়া সরকার নির্দেশিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালা আয়োজন করা হয়।

 

প্রকাশনা বিক্রয় কেন্দ্র :

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী কর্তৃক প্রকাশিত বিভিন্ন প্রকাশনা সমূহ একাডেমীর অফিস চলাকালীন সময়ে বিক্রয় করা হয়।